Search Recipes

ভিন্ন ধরনের এগ রেসিপি এবং আমার টিপস

রেসিপি: ডিম বল

উপকরণ:  
৬টি ডিম, ১টি নারকেলের দুধ, আদা বাটা, রসুন বাটা, পোস্তদানা বাটা, কাঁচামরিচ, পেঁয়াজ কুচি, আধা কাপ খাবার তেল।

প্রস্তুত প্রণালী:

গরম কড়াইয়ে তেল দিয়ে পেঁয়াজ কুচি, আদা, রসুনসহ অন্যান্য মসলা দিয়ে দেব, সঙ্গে পরিমাণমতো লবণ। তারপর নারকেল দুধটা দিয়ে দেব কড়াইয়ে। এবার চামচ দিয়ে নাড়তে হবে কিছুক্ষণ।
এদিকে ৬টি ডিম সেদ্ধ করে সেগুলো থেকে প্রথমে কুসুম ছাড়িয়ে নিতে হবে। তারপর সাদা অংশটুকু শিল-পাটায় বেটে নিতে হবে। একপর্যায়ে কুসুমও সাদা বাটার সঙ্গে মিশিয়ে বেটে নিতে হবে।




Photo: পেস্ট করা ডিমের সাদা আর হলুদ অংশ ।
 
এরপর দুই হাতে একটু তেল মেখে নিয়ে ডিম বাটার অংশ নিয়ে ছোট ছোট বল বানাতে হবে। এ বলগুলো ফ্রাইপ্যানে নিয়ে সামান্য তেলের মধ্যে ভেজে নিতে হবে। 




 






Photo: পোস্তদানা বাটা এবং ভাজি করা ডিমবল। 
তবে এইরকম করে ভাজবেন না। টিপসে যেভাবে বলা আছে ঔভাবে ভাজবেন।



তারপর কষানো মসলায় ডিমের বলগুলো ছেড়ে দিই। কিছুক্ষণ চুলোয় রেখে ডিম বল চুলো থেকে নামিয়ে ফেলি। মুখে দিলেই দারুণ এক স্বাদ পাওয়া যাবে ডিম বলের।


আমার টিপস:
১।সাদা অংশটুকু শিল-পাটায় বেটে নিতে হবে

শিল-পাটায় না বেটে ব্লেন্ডিং মেশিনে ব্লেন্ড করে নিন। আরোও সহজ আর মসৃন পেষা হবে।

২। একপর্যায়ে কুসুমও সাদা বাটার সঙ্গে মিশিয়ে বেটে নিতে হবে। এইভাবেও করতে পারেন।
তবে কষ্ট করতে চাইলে কুসুমের সাথে অন্যান্য জিনিস মিক্স করে ডেভিলড এগস এর কুসুমের মত বানিয়ে নিয়ে , সাদা অংশের মাঝে ডেভিলড এগের কুসুম দিয়ে ডিমের মত গড়ে নিয়ে তারপর ভাজতে পারেন।

৩। ডিমের মত শেপ গড়ে নিয়ে এরপর যখন ভাজবেন তখন খুব অল্প সময়ের জন্য ভাজবেন। জাস্ট রান্নার সময় খুলে যাবেনা ঔরকম হলেই হবে। বেশি ভাজবেন তো খেতে আর মজা লাগবে না। আমি প্রথমবার বেশি ভেজে ফেলেছিলাম। পরেরবার একটু হালকা ভেজেই তুলে ফেলেছি।
আর বলের সাইজটা একটু বড় করবেন। আমার ছবি মত ছোট করবেন না।

চম্পার বাকি রেসিপিগুলোর জন্য ক্লিক করুন এখানে

No comments:

Related Posts Plugin for WordPress, Blogger...

Follow by Email